সমাজ বিজ্ঞান কাকে বলে? সমাজবিজ্ঞানের জনক কে?

সমাজ বিজ্ঞান

সমাজ বিজ্ঞান

ইংরেজি Sociology  শব্দের বাংলা প্রতিশব্দ হচ্ছে সমাজবিজ্ঞান। ল্যাটিন শব্দ “Socious “এবং “logos ” থেকে Sociology শব্দটির উৎপত্তি হয়েছে।  যেখানে “Socious “ শব্দের অর্থ সমাজ আর “logos ” শব্দের অর্থ বিজ্ঞান । তাই sociology শব্দটির অর্থ হলো সমাজের বিজ্ঞান।

আজকে এ পোস্টে আমরা আলোচনা করবো সমাজ বিজ্ঞান কাকে বলে এবং সমাজবিজ্ঞানের জনক কে ইত্যাদি।

 

সমাজ বিজ্ঞান কাকে বলে?

আমাদের চারপাশে যা কিছু আছে তার সমষ্টিকে সমাজ বলে। আর এই সমাজ নিয়ে যে বিশেষ জ্ঞান তাকে সমাজবিজ্ঞান বলা হয়।

সমাজ বিজ্ঞান হচ্ছে জ্ঞানের এমন একটি শাখা যা সমাজ ও মানবিক আচরণ নিয়ে আলোচনা করে। সমাজবদ্ধ মানুষের জীবনের সামাজিক দিক এবং তাদের পারস্পরিক সম্পর্ক নিয়ে আলোচনা করে। সমাজ বিজ্ঞান ধারণাটি বেশ পুরোনো।

বিশিষ্ট সমাজবিজ্ঞানী পার্ক এর মতে, সমাজবিজ্ঞান হলো এমন এক বিজ্ঞান যা মানবগোষ্ঠী কিংবা মানুষের আচরণ সম্পর্কিত বিজ্ঞান।

বিশিষ্ট সমাজবিজ্ঞানী ম্যাকাইবারের মতে , সমাজবিজ্ঞান এমন এক ধরণের বিজ্ঞান যা মানুষের সামাজিক ধর্মকর্ম ও রীতিনীতি নিয়ে আলোচনা করে থাকে।

 

আরও পড়ুন-

বঙ্গভঙ্গ কি বা কাকে বলে ? কত সালে বঙ্গভঙ্গ হয়?

ঙ্গভঙ্গ রদ কি? বঙ্গভঙ্গ রদ কত সালে হয় ? বঙ্গভঙ্গ রদ করেন কে?

 

সমাজবিজ্ঞানের জনক কে?

১৮৩৮ সালে সর্বপ্রথম সমাজ বিজ্ঞান শব্দটি ব্যবহার করেন ফরাসী দার্শনিক অগাস্ট কোঁৎ। অগাস্ট কোঁৎ কে সমাজবিজ্ঞানের জনক বলা হয়। আধুনিক সমাজ বিজ্ঞানের মূল স্থপতি বলা হয় ম্যাক্স ওয়েভার ও এমিল ডুর্খেইম। তবে ইবনে খালদুনকে সমাজ বিজ্ঞানের প্রাচীন জনক বলা হয়ে থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button