ব্যাকরণ কাকে বলে? ব্যাকরণের কার্যাবলি আলোচনা কর।

ব্যাকরণ

ব্যাকরণ বলতে কী বোঝায়? ব্যাকরণের কার্যাবলি আলোচনা কর।

অথবা

“ভাষার অভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলা আবিষ্কারের নামই ব্যাকরণ।” উক্তিটির তাৎপর্য বিশ্লেষণ কর।

অথবা

“ব্যাকরণ ভাষাকে শাসন করে না, নির্দেশ করে মাত্র।” যুক্তি দিয়ে বুঝিয়ে দাও।

অথবা

ব্যাকরণ আগে নাকি ভাষা আগে। যুক্তি দিয়ে বুঝিয়ে দাও।

অথবা

‘ব্যাকরণ ভাষার শাসক নয়, সংবিধান যুক্তি দিয়ে বুঝিয়ে দাও।

ব্যাকরণ কাকে বলে?

উত্তর: মনের ভাব আদান-প্রদান করার জন্য মানুষ বিভিন্ন ভাষা ব্যবহার করে। প্রত্যেকটি ভাষার রয়েছে এক একটি শৃঙ্খলা। ব্যাকরণ ভাষার সেই শৃঙ্খলা সংক্রান্ত বিদ্যা। ভাষাতাত্ত্বিকগণ বিভিন্নভাবে ব্যাকরণকে সংজ্ঞায়িত করেছেন। প্রথাগতভাবে বলা হয় যে, “যে শাস্ত্র পাঠ করলে কোনো ভাষা শুদ্ধরূপে লিখতে, পড়তে ও বলতে পারা যায় তাকেই সেই ভাষার ব্যাকরণ বলে।” কিন্তু আধুনিক ভাষাতাত্ত্বিকগণ এব্যাপারে অনেকাংশে ভিন্নমত পোষণ করেছেন।

ডক্টর সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায় তাঁর ‘ভাষা প্রকাশ বাঙ্গালা ব্যাকরণ” গ্রন্থে লিখেছেন “যে বিদ্যার দ্বারা কোন ভাষাকে বিশ্লেষণ করে তার স্বরূপ, প্রকৃতি ও প্রয়োগনীতি বিশেষভাবে নির্ণয় করা যায় সে বিদ্যাকে সে ভাষার ব্যাকরণ বলে।”

তাহলে বলা যায় যে, ব্যাকরণ হলো- ভাষার বিশ্লেষণ এবং শৃঙ্খলা সংক্রান্ত বিদ্যা- যেখানে ভাষার বিভিন্ন উপাদানের স্বরূপ, সংগঠন ও শুল্ক অশুদ্ধ প্রয়োগ সম্পর্কে বিস্তারিত বর্ণনা লিপিবদ্ধ থাকে।

শাব্দিক বিশ্লেষণ করলেও দেখা যায় যে, ‘ব্যাকরণ’ একটি সংস্কৃত তথা তৎসম শব্দ যার অর্থ হল ‘বিশেষভাবে বিশ্লেষণ। শব্দটির গঠন হল: বি+আ+কৃ বা কর+অন। ইংরেজি ‘Grammar’ শব্দটি গ্রীক ভাষা থেকে আগত- যার অর্থ হল ‘শব্দ শাস্ত্র’ তথা ‘শুদ্ধ বর্ণবিন্যাস বিদ্যা’।

আরও পড়ুন:

ভাষা কী? ভাষা প্রকাশের মাধ্যম কয়টি ও কী কী?

মাতৃভাষা কাকে বলে?

বর্ণ কি বা বর্ণ কাকে বলে? বর্ণ কত প্রকার ও কি কি?

বাক্য কাকে বলে? একটি সার্থক বাক্যের কী কী গুণ থাকা আবশ্যক?

 

অত্যাধুনিক মতে, ব্যাকরণ বলতে সেই বিদ্যাকে বোঝায় যাতে কোনো ভাষাশৃঙ্খলার নিয়ম-নীতি লিপিবদ্ধ থাকে। তাই বলা হয়। “The invention of the inter discipline of a language is called Grammar” অর্থাৎ “কোনো ভাষার অভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলা আবিষ্কারের নামই ব্যাকরণ।”

মূলত ব্যাকরণ কোনো ভাষার শাসক বা নির্দেশক নয় বরং, সংবিধান বা প্রবাহ চিত্রের ধারক ও বাহক মাত্র। কারণ আমরা জানি, ব্যাকরণ একটি নির্দিষ্ট সময়ের কোনো মানভাষার (Standard Language) শৃঙ্খলার সাথে সংশ্লিষ্ট বিদ্যা। তাই বলা যায় যে, ভাষা সৃষ্টির অনেক পরে ব্যাকরণের জন্ম।

প্রকৃতপক্ষে ব্যাকরণ কোনো ভাষার বিভিন্ন উপাদানের পরিচয়, সংগঠন, বিভাজন ও প্রয়োগ বিধির নিয়ম-কানুন আলোচনা করে এবং সেই ভাষার মানরূপ ও অন্যান্য রূপ নির্দেশ করে। সে জন্য ব্যাকরণ ভাষার শাসকের নয়; সংবিধানের কাজ করে।

পরিশেষে বলা যায় যে, একটি ভাষার ব্যাকরণ হল ঐ ভাষার অভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলা নির্দেশক নিয়মাবলির সমাহার বা সমাবেশ বা সংবিধান মাত্র। ঐ ভাষার শাসক নয়।

####

এই পোস্ট থেকে আমরা ব্যাকরণ কাকে বলে? ব্যাকরণের কার্যাবলি সম্পর্কে জানতে পারলাম। পোস্টটি কেমন লাগলো আমাদের কমেন্ট করে জানান। ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button