পড়া মনে রাখার সহজ কৌশল

পড়া মনে রাখার সহজ উপায়

পড়া মনে রাখার সহজ উপায়

পড়া মনে থাকে না বা আমরা যা পড়ি সব ভুলে যাই এমন সমস্যা কম বেশি অনেক শিক্ষার্থীর রয়েছে। অনেক শিক্ষার্থী রয়েছে যারা সারাদিন একটি বিষয় পড়েও মনে রাখতে পারেনা, আবার অনেকে একই বিষয় সামান্য সময় পড়েও মনে রাখতে পারে।

যেসব শিক্ষার্থী মনে রাখতে পারে তাদের মধ্যে আবার কয়েক ধরনের প্রার্থক্য রয়েছে। কেউ একটি বিষয় কয়েক ঘন্টা, কেউ কয়েকদিন আবার কেউ কয়েক মাস বা বছর পর্যন্ত মনে রাখতে পারে। আসলে পড়া মনে রাখার টেকনিক রয়েছে। পড়া মনে রাখার কৌশল রয়েছে। আপনি যদি পড়া মনে রাখার কৌশল আয়ত্ত করতে পারেন তাহলে আপনার পড়া অনেকদিন মনে থাকবে।

আজ আমরা আপনাদের সাথে আলোচনা করবো এমনটি আসলে কেন হয়। আপনাদের পড়া মনে রাখার কার্যকরী কৌশল শিখাবো। আশা করি আপনি এগুলো অনুসরন করলে পড়া সহজে মনে রাখার উপায় পেয়ে যাবেন।

পড়া মনে রাখার উপায় কি-

প্রথমত, মূল বিষয় আলোচনার আগে আপনাদের বলে রাখি দ্রুত পড়া মনে রাখার কৌশল রপ্ত করতে চাইলে আমরা যে বিষয়গুলো আলোচনা করবো সেগুলো আপনাকে অবশ্যই মেনে চলতে হবে। তাহলে আপনি সহজে পড়া মনে রাখতে পারবেন।

সঠিক কৌশল প্রয়োগ করে না পড়লে পড়া মনে থাকবেনা। দ্রুত পড়া মনে রাখার কিছু কৌশল-

 আগ্রহ তৈরি-

সহজে পড়া মনে রাখতে চাইলে আপনাকে আগ্রহ নিয়ে পড়তে বসতে হবে। আপনি কোন খেলা বা মুভি দেখার সময় যেমন আগ্রহ নিয়ে বসেন, তেমন আগ্রহ নিয়ে পড়তে বসতে হবে। পড়া মাথায় কাজ করেনা, ‍বুঝিনা এমন ধারণা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। মনের মধ্যে আত্মবিশ্বাস থাকতে হবে যে আপনি পারবেন। সকল টেনশন বাদ দিয়ে খালি মাথা নিয়ে পড়তে বসতে হবে।

একটা বিষয় মনে রাখবেন, পড়া সবার কাছেই কমবেশি কঠিন। আর এ কঠিন বিষয়টিকে যদি আপনি মনে রাখতে চান তাহলে আগ্রহ থাকাটা আবশ্যক। কেননা আগ্রহ না থাকলে কোন কাজেই সঠিকভাবে সম্পাদন হয় না।

কনসেপ্ট ট্রি-

সহজে পড়া মনে রাখার কার্যকরী কৌশল হচ্ছে কনসেপ্ট ট্রি। এ পদ্ধতিতে আপনাকে কোন একটি বিষয় শিখার বা মনে রাখার আগে পুরো অধ্যায়টিকে কয়েকটি অংশে ভাগ করে নিতে হবে। তারপর প্রতিটি অংশের জন্য একটি লাইন করে সারমর্ম লিখতে ফেলতে হবে। তারপর, প্রতিটি লাইন প্রতিদিন চোখ বুলালেই পুরো অধ্যায় আপনার মাথায় চলে আসবে। এটি একটি পরিক্ষিত বৈজ্ঞানিক ধারণা।

আরও পড়ুন: 13 Best Ways To Improve English Speaking Skills

কী ওয়ার্ড –

কোন কঠিন বিষয় আপনি ছন্দ বা কী ওয়ার্ড দিয়ে খুব সহজে মনে রাখতে পারেন। কি ছন্দ বা কী ওয়ার্ড দিয়ে মনে রাখবেন সেটা আপনার উভয় নির্ভর করবে। তবে, যে ছন্দ বা কী ওয়ার্ড ব্যবহার করুন না কেন সবসময় মজার মজার ছন্দ বা কী ওয়ার্ড ব্যবহার করতে চেষ্টা করবেন। তাহলে খুব কাজে দিবে।

যেমন: রংধনুর সাত রং মনে রাখার সহজ উপায় হলো ‘বেনীআসহকলা’। এটি মনে রাখলে আপনি রংধনুর সাত রং মনে রাখতে পারবেন। ‘বেনীআসহকলা’ এই শব্দে সাতটি অক্ষর সাতটি রং নির্দেশ করে। তেমনি ‘মিথ্যা তুমি দশটি পিপিলিকা’ মনে রাখলেই ইংরেজী ‘লেফটেনেন্ট’ (Lie,u,ten,ant ) বানান মনে রাখা যায়।

লিখে পড়ার অভ্যাস করতে হবে- 

দেখে দেখে পড়ার চাইতে লিখে পড়ার গুরুত্ব অনেক বেশি। লিখে লিখে পড়লে পড়া বেশি সময় মনে থাকে। লিখে লিখে পড়লে মানুষের ব্রেনের অনেক বেশি এলাকা উদ্দীপ্ত হয়। ব্রেনে পড়া স্থায়ী মেমোরীতে রূপান্তর হতে লিখে লিখে পড়ার গুরুত্ব অনেক বেশি।

মার্কার ব্যবহার করা –

সহজে পড়া মনে রাখার জন্য মার্কার ব্যবহার করা বেশ কার্যকর। কারণ, কোন কিছুতে মার্ক করে রাখলে তা সবার আগে আমাদের মাথায় আসে। কোন কিছুতে মার্ক করলে ঐ শব্দ বা বাক্যের উপর আমাদের আগ্রহ ও আকর্ষণ বেড়ে যায়। পাশাপাশি কোন কিছু মার্ক করা থাকলে ব্রেনের ভিজ্যুয়াল এফেক্ট বেড়ে যায়। ফলে পড়া মনে রাখতে অনেক সুবিধা হয়।

সন্ধ্যার পর পড়াশোনা করা-

কিছু গবেষণায় দেখা গেছে, সকাল দশটার আগে মানুষের ব্রেন ক্রিয়াশীল হয় না। এরপর ধীরে ধীরে মানুষের ব্রেন কাজ করতে শুরু করে। বিশেষ করে ব্রেনের ক্রিয়াশীলতা বিকালের পরে বাড়ে। তাই, সকালের পড়া চেয়ে বিকাল বা সন্ধ্যার পর পড়া বেশী কার্যকর।

পর্যাপ্ত ঘুম-

পড়া মনে রাখতে হলে আপনার পর্যান্ত ঘুম প্রয়োজন । পর্যাপ্ত ঘুম ব্যতীত কোন কাজ সঠিকভাবে করা যায়না। ঘুমের ভিতর ব্রেন মূলত স্মৃতি তৈরির কাজ করে। গবেষণায় দেখা গেছে, ঘুমের সময় সারাদিনের কাজ বা ঘটনাগুলো মেমোরিতে রূপান্তরিত হয়। ফলে যে কোন তথ্য মেমোরিতে রূপান্তরিত করতে চাইলে পর্যান্ত পরিমাণ ঘুমাতে হবে।

মুখস্থ বিদ্যাকে না বলা-

মুখস্থ বিদ্যা চিন্তাশক্তিকে অকেজো করে দেয়। পড়াশোনার আনন্দ নষ্ট করে দেয়। মুখস্ত করলে পড়া বেশিদিন মনে থাকেনা। তাই, মুখ বিদ্যাকে না বলে দিন। মুখস্ত না করে বুঝে পড়ার চেষ্টা করুন। তাহলে বেশি মনে থাকবে। তবে, কিছু তথ্য যেমন: কোন কিছুর সাল, তারিখ, বইয়ের নাম, ব্যাক্তির নাম ইত্যাদি মুখস্ত করতে হবে।

রিভাইজ-

গবেষণায় দেখা গেছে, আমরা সারাদিন যা পড়ি তার পাঁচ দিন পর চার ভাগের তিন ভাগই ভুলে যাই। সেজন্য বেশি বেশি রিভাইজ দিতে হবে। বেশি বেশি রিভাইজ দিলে পড়া মনে থাকে অনেকদিন।

 

উপরের উল্লেখিত টিপসগুলো মানলে আশা করি আপনার পড়া দ্রুত মনে থাকবে। এ ধরনের টিপস পেতে ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইটে eduwatchbd.com

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button