তৎপুরুষ সমাস কাকে বলে? তৎপুরুষ সমাস কত প্রকার?

তৎপুরুষ সমাস কাকে বলে? তৎপুরুষ সমাস কত প্রকার?

 তৎপুরুষ সমাস কি?

বাংলা ব্যাকরণের খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল সমাস। সমাসের পরিধি বেশ বড়। তা আমরা সমাসের অংশগুলো আলাদা আলাদা আলোচনা করছি। এই আর্টিকেলটি তৎপুরুষ সমাস কি? তা নিয়েই। তাছাড়া তৎপুরুষ সমাস কাকে বলে? তৎপুরুষ সমাস কত প্রকার- এসব নিয়েই বিস্তারিত আলোচনা থাকছে এই পোস্টে।

বাংলা ব্যাকরণে ৬ প্রকার সমাস রয়েছে। তাদের মধ্যে একটি হল তৎপুরুষ সমাস।

 

তৎপুরুষ সমাস কাকে বলে?

তৎপুরুষ সমাস কাকে বলে?
তৎপুরুষ সমাস কাকে বলে?

চলুন জেনে নিই তৎপুরুষ সমাস কাকে বলে।

পূর্বপদের বিভক্তি লোপ পেয়ে এবং পরপদের অর্থ প্রাধান্যরূপে যে সমাস গঠিত হয়, তাই তৎপুরুষ সমাস।

তৎপুরুষ সমাস কত প্রকার? বা তৎপুরুষ সমাসের প্রকারভেদ

তৎপুরুষ সমাস কত প্রকার
তৎপুরুষ সমাস কত প্রকার?

তৎপুরুষ সমাস নয় প্রকার।

  1. দ্বিতীয়া তৎপুরুষ
  2. তৃতীয়া তৎপুরুষ
  3. চতুর্থী তৎপুরুষ
  4. পঞ্চমী তৎপুরুষ
  5. ষষ্ঠী তৎপুরুষ
  6. সপ্তমী তৎপুরুষ
  7. নঞ তৎপুরুষ
  8. উপপদ তৎপুরুষ
  9. অলুক তৎপুরুষ সমাস

আরো রয়েছেঃ

  1. সুপসুপা সমাস
  2. নিত্য সমাস
  3. প্রাদি সমাস

১. দ্বিতীয়া তৎপুরুষ সমাস কাকে বলে?

যে সমাসে পূর্বপদে দ্বিতীয়া বিভক্তি লোপ পায় তাকে দ্বিতীয়া তৎপুরুষ সমাস বলে।

উদাহরণ : পদকে আশ্রিত = পদাশ্রিত

চরণকে আশ্রিত = চরণাশ্রিত

বিপদকে আপন্ন = বিপদাপন্ন। ধর্মকে সংক্রান্ত = ধর্মসংক্রান্ত

 

. তৃতীয়া তৎপুরুষ সমাস কাকে বলে? পূর্বপদে তৃতীয়া বিভক্তি লোপ পায়।

উদাহরণ : উেঁকি দ্বারা ছাঁটা = চেঁকিছাঁটা

ঘি দিয়ে ভাজা = ঘিয়েভাজা

 

৩. চতুর্থী তৎপুরুষ সমাস কাকে বলে?

পূর্বপদে চতুর্থী বিভক্তি লোপ পায়। সাধারণত তরে, জন্য, নিমিত্ত বিভক্তিগুলো লোপ পায়।

উদাহরণ : বিয়ের জন্য পাগলা = বিয়েপাগলা

শয়নের নিমিত্তে কক্ষ = শয়নকক্ষ

 

৪. পঞ্চমী তৎপুরুষঃ পূর্বপদে পঞ্চমী বিভক্তি লোপ পায়। সাধারণত পুত, জাত, আগত, ভীত, গৃহীত, নিয়ত, মুক্ত, উত্তীর্ণ, চালানো, ভ্রষ্ট ইত্যাদি পরস্পরের ফলে পঞ্চমী তৎপুরুষ সমাস হয়।

উদাহরণ : আগা থেকে গোড়া = আগাগোড়া

জেল থেকে খালাস = জেলখালাস

বিলাত হতে ফেরত = বিলাতফেরত

প্রাণের চেয়ে প্রিয় = প্রাণপ্রিয়।

 

৫. ষষ্ঠী তৎপুরুষ : পূর্বপদে ষষ্ঠী বিভক্তি লোপ পায়।

উদাহরণ : কবিদের গুরু = কবিগুরু

মনের রথ = মনোরথ

খেয়ার ঘাট = খেয়াঘাট

নাটকের অভিনয় = নাট্যাভিনয়

৬. সপ্তমী তৎপুরুষঃ পূর্বপদে সপ্তমী বিভক্তি লোপ পায়।

উদাহরণ : গোলায় ভরা = গোলাভরা

গাছে পাকা = গাছপাকা

অকালে পক্ক = অকালপক্ক

বিশ্বের বিখ্যাত = বিশ্ববিখ্যাত।

 

৭. নঞ তৎপুরুষ নঞ অব্যয়ঃ (না, নেই, নাই, নয়) পূর্বে বসে।

উদাহরণ : নয় সুখ = অসুখ

ন আচার = অনাচার

নয় অতি দীর্ঘ = নাতিদীর্ঘ

নাই বৃষ্টি = অনাবৃষ্টি

 

. উপপদ তৎপুরুষ : কৃৎপ্রত্যয় সাধিত পদ হল কৃদন্তপদ। কৃদন্তপদ-পূর্ব বিশেষ্যকে বলে উপপদ। উপপদের সাথে কৃদন্ত পদের যে সমাস হয় তাকে উপপদ তৎপুরুষ সমাস বলে।

উদাহরণ : জলে চরে যে = জলচর

স্থলে চলে যে = স্থলচর

মধু পান করে যে = মধুপ

যাদু করে যে = যাদুকর

 

৯. অলুক তৎপুরুষ সমাস : যে তৎপুরুষ সমাসে পূর্বপদে বিভক্তি লোপ পায়, তাকে অলুক তৎপুরুষ সমাস বলে।

উদাহরণ : হাতে কাটা = হাতকাটা

তেলে ভাজা = তেলেভাজা

পড়ার জন্য ঘর = পড়ারঘর

ঘানির তেল = ঘানিরতেল

আরো পড়ুন

কর্মধারয় সমাস কাকে বলে? কর্মধারয় সমাস কত প্রকার?

দ্বন্দ্ব সমাস কাকে বলে? দ্বন্দ্ব সমাসের প্রকারভেদ

এছাড়াও রয়েছে –

. সুপসুপা সমাস: ‘সুপ’ অর্থ বিভক্তিযুক্ত নামপদ। কোন বিভক্তিযুক্ত নামপদের সাথে অপর কোন বিভক্তিযুক্ত নামপদের সমাস হলে, তাকে সুপসুপা তৎপুরুষ সমাস বলে।

যেমন : পূর্বে ভূত = ভূতপূর্ব

. নিত্য সমাস : যে সমাসে সমস্যমান পদগুলো নিত্য সমাসবদ্ধ থাকে, ব্যসবাক্যের দরকার হয় না, তাকে নিত্য সমাস বলে।

উদাহরণ : কেবল দর্শন = দর্শনমাত্র

সমস্ত গ্রাম = গ্রামসুদ্ধ

অন্য গ্রাম = গ্রামান্তর

অন্য বিষয় = বিষয়ান্তর।

৩. প্রাদি সমাস : যে সমাসের পূর্বে উপসর্গ (প্র, প্রতি, উৎ) ও উত্তরে কৃদন্ত পদ যুক্ত হয় এবং অব্যয়ের সাথে যুক্ত হয়, তাকে প্রাদি সমাস বলে।

উদাহরণ : অনুতে (পশ্চাতে) যে তাপ = অনুতাপ

প্রকৃষ্ট ভাব = প্রভাব

বাস্তু থেকে উৎখাত = উদ্বাস্তু ।

সমস্তপদ

বাসবাক্য

সমাসের নাম

বিপদাপন্ন বিপদকে আপন্ন

দ্বিতীয়া তৎপুরুষ

চিরসুখী( ব্যাপ্তি অর্থে) চিরকাল ব্যাপিয়া সুখী
মনগড়া মন দিয়ে গড়া

তৃতীয়া তৎপুরুষ সমাস

 তেলেভাজা তেল দিয়ে ভাজা
বিয়ে পাগলা বিয়ের জন্য পাগলা

চতুর্থী তৎপুরুষ সমাস

হাজ্জ্বযাত্রা হজ্জ্বের জন্য যাত্রা
বিলাতফেরত বিলাত থেকে ফেরত

পঞ্চমী তৎপুরুষ সমাস

রাজপুত্র রাজার পুত্র

ষষ্ঠী তৎপুরুষ সমাস

গাছপাকা গাছে পাকা

সপ্তমী তৎপুরুষ সমাস

অনাদর ন আদর

নঞ তৎপুরুষ সমাস

পকেটমার পকেট মারে যে

উপপদ তৎপুরুষ সমাস

ঘিয়ে ভাজা ঘিয়ে ভাজা

অলুক তৎপুরুষ সমাস

মুখে ভাত মুখে ভাত

আরো পড়ুন

ধ্বনি কাকে বলে? ধ্বনি কত প্রকার? 

পদ কাকে বলে? পদ কত প্রকার? এবং পদের প্রকারভেদ

বাক্য কাকে বলে? একটি সার্থক বাক্যের কী কী গুণ থাকা আবশ্যক?

বাংলা ২য় নিয়ে আমাদের অন্যান্য পোস্ট গুলা পড়তে পারেন এখান থেকে।

বাংলা ২য় পত্র

তাছাড়া আমাদের ওয়েবসাইটে প্রায় সকল প্রকার পিডিএফ বই রয়েছে।

আমাদের পিডিএফ বই কালেকশান গুলো পেতে 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button