তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি কাকে বলে? তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সুফল ও কুফল  

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সুফল ও কুফল

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি

 তথ্য প্রযুক্তি কী?

বর্তমান যুগ তথ্য প্রযুক্তির যুগ। বিশ্বের অনেক কঠিন কাজকে প্রযুক্তি সহজ করে দিয়েছে। কোন তথ্য আহরণ, সংরক্ষণ ইত্যাদি কাজে প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়। এখন প্রশ্ন আসতে পারে তথ্য প্রযুক্তি কী বা তথ্য প্রযুক্তি কাকে বলে?

তথ্য প্রযুক্তির ইংরেজি প্রতিশব্দ ইনফরমেশন টেকনোলজি (Information Technology)। একে সংক্ষেপে IT (আইটি) নামে অভিহিত করা হয়। সাধারণত কোন তথ্য রাখা  এবং একে ব্যবহার করার প্রযুক্তিকেই তথ্য প্রযুক্তি বলে।

 

 তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি কাকে বলে?

সার্বিকভাবে বলতে গেলে কম্পিউটার এবং টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থার মাধ্যমে যাবতীয় তথ্য সংগ্রহ, একত্রীকরণ, সংরক্ষণ, প্রক্রিয়াকরণ এবং বিনিময় বা পরিবেশনের ব্যবস্থাকে তথ্য প্রযুক্তি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। তথ্য প্রযুক্তির সাথে যোগাযোগ মাধ্যমের রয়েছে নিবিড় সম্পর্ক। তাই বর্তমানে তথ্য প্রযুক্তিকে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বলে।

 

 তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সুফল ও কুফল

বর্তমান বিশ্ব তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর এক আধুনিক বিশ্বে পরিণত হয়েছে। প্রযুক্তির অভাবনীয় পরিবর্তনের ফলে মানুষের অনেক জটিল কাজ সহজ হয়ে গিয়েছে।

তবে, তথ্যপ্রযুক্তি মানুষের সামাজিক জীবনে যেমন সুফল বয়ে এনেছে , তেমনি কিছু কুফলও রয়েছে।

 

আরও পড়ুন: ভিডিও কনফারেন্সিং কি? ভিডিও কনফারেন্সিং এর সুবিধা

 

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির সুফল

  • অপচয় রোধ করে।
  • সময় সাশ্রয়ী ব্যবস্থা তৈরি হয়েছে।
  • সহজে তথ্য পাওয়া যায়।
  • দ্রুত যোগাযোগ সম্ভব হয়।
  • নাগরিক সুবিধাগুলো ঘরে বসেই পাওয়া যায়।
  • শিক্ষার্থীরা ঘরে শিক্ষার্থীরা পড়াশোনা করতে পারছে।
  • ব্যবসায়-বাণিজ্যে লাভজনক প্রক্রিয়া সৃষ্টি করে।
  •  ই-কমার্সের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী পণ্যের বাজার সৃষ্টি হয়েছে।
  • প্রশিক্ষণের গতিকে ত্বরান্বিত করে।
  • ঘরে বসেই জিনিসপত্র কেনাকাটা করা যাচ্ছে।
  • মানবসম্পদের উন্নয়ন ঘটায়।
  • ই-গভর্নেন্স চালুর মাধ্যমে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও দপ্তরের মধ্যে কাজের সমন্বয় ঘটানো যায়।

 

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির কুফল

  • অপরাধ প্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে।
  • অবাধ তথ্য প্রবাহের ফলে মানুষের নৈতিক স্থলন ঘটছে।
  • এর অপব্যবহারে অনেক ব্যক্তির গোপনীয়তা প্রকাশ পাচ্ছে।
  • অতিরিক্ত প্রযুক্তি ব্যবহারে শারীরিক সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে।
  • অবাধ তথ্য প্রবাহের ফলে চিন্তা ও গবেষণার ব্যঘাত হচ্ছে।
  • এর মাধ্যমে অনেক গুজব তথ্য ছড়ানো হচ্ছে।

 

##############

যদি ভিডিও দেখে জানতে চান। তাহলে নিচের ভিডিওটি আপনার জন্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button