কর্মধারয় সমাস কাকে বলে? কর্মধারয় সমাস কত প্রকার?

কর্মধারয় সমাস কি? কর্মধারয় সমাস কাকে বলে?

কর্মধারয় সমাস কি?

বাংলা ব্যাকরণের খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল সমাস। সমাসের পরিধি অন্যান্য বিষয় গুলোর থেকেও বেশ বড়। তাই আমরা সমাসের প্রতিটি অংশকে ভাগ করে আলোচনা করছি। তাহলে চলুন আজ দেখি, কর্মধারয় সমাস কি? বা কর্মধারয় সমাস কাকে বলে?
কর্মধারয় সমাস হল সমাসে খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি পাঠ। বাংলা ব্যাকরণে ৬ প্রকার সমাস রয়েছে। তাদের মধ্যে একটি হল কর্মধারয় সমাস।

কর্মধারয় সমাস কাকে বলে?

কর্মধারয় সমাস কাকে বলে?
কর্মধারয় সমাস কাকে বলে?

বিশেষণ বা বিশেষণ ভাবাপন্ন পদের সঙ্গে বিশেষ্য বা বিশেষ্য ভাবাপন্ন পদ গুলোর সমাস হয় এবং পরপদের অর্থই প্রধান হয়, তাকে কর্মধারয় সমাস বলে।

যেমন – যে চালাক সেই চতুর = চালাক-চতুর

কর্মধারয় সমাস কত প্রকার?

কর্মধারয় সমাস কত প্রকার?
কর্মধারয় সমাস কত প্রকার?

কর্মধারয় সমাস ৪ প্রকার।

  1. মধ্যপদলোপী সমাস
  2. উপমান কর্মধারয়
  3. উপমিত কর্মধারয়
  4. রূপক কর্মধারয়

আমরা জানলাম যে কর্মধারয় সমাস ৪ প্রকার। এবার কর্মধারয় সমাসের অন্তর্গত প্রতিটি সমাস নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হল।

আরো পড়ুন- দ্বন্দ্ব সমাস কাকে বলে? দ্বন্দ্ব সমাসের প্রকারভেদ

১. মধ্যপদলোপী সমাসঃ যে সমাসে ব্যাসবাক্যেতে মধ্যপদের লোপ হয়, তাকেই মধ্যপদলোপী কর্মধারয় সমাস বলে।

উদাহরণ :

পল (মাংস) মিশ্রিত অন্ন = পলান্ন

সিংহ চিহ্নিত আসন = সিংহাসন।

সমস্তপদ

বাসবাক্য

সমাসের নাম

সিংহাসন সিংহ চিহ্নিত আসন মধ্যপদলোপী সমাস
জোৎস্নারাত জোৎস্না সুভিত রাত
মৌমাছি মৌ-সঞ্চয়কারী মাছি
ভিক্ষান্ন ভিক্ষা লব্ধ অন্ন
পলান্ন পল মিশ্রিত অন্ন
হাসিমুখ হাসি মাখা মুখ

 

. উপমান কর্মধারয় : উপমান অর্থ তুলনীয় বস্তু। যার সাথে ব্যক্তি বা বস্তুর তুলনা

করা হয় তাকে বলা হয় উপমান।

সাধারণ ধর্মবাচক পদের সাথে উপমান পদের যে সমাস হয় তাকে উপমান কর্মধারয় সমাস বলে।

উদাহরণ :

মিশির ন্যায় কালো = মিশকালো

শশকের ন্যায় ব্যস্ত = শশব্যস্ত

সমস্তপদ বাসবাক্য সমাসের নাম
ভ্রমর ‍কৃষ্ণ কেশ ভ্রমরের ন্যায় কৃষ্ণ কেশ (উপমান) (সাধারণ ধর্ম) (উপমেয়)  

উপমান কর্মধারয়

তুষারশুভ্র তুষারের ন্যায় শুভ্র
কাজল কালো কাজলের ন্যায় কালো

 

. উপমিত কর্মধারয় : প্রত্যক্ষ বস্তুর সাথে পরোক্ষ বস্তুর তুলনা করলে প্রত্যক্ষ

বস্তুটিকে বলা হয় উপমেয় বা উপমিত। সাধারণ গুণের কথা উল্লেখ না করে উপমেয় পদের সাথে উপমান পদের যে সমাস হয়, তাকে উপমিত কর্মধারয় সমাস বলে।

উদারহণ : কর কমল সদৃশ = করকমল

পুরুষ সিংহের ন্যায় = পুরুষসিংহ।

সমস্তপদ বাসবাক্য

সমাসের নাম

মুখচন্দ্র মুখ (উপমেয়) চন্দ্রের (উপমান) ন্যায়  

উপমিত কর্মধারয়

পুরুষ ‍সিংহ পুরুষ সিংহের ন্যায়

 

. রূপক কর্মধারয় : উপমান ও উপমেয়ের মধ্যে অভিন্নতা কল্পনা করা হলে অর্থাৎ অভেদারােপ করা হলে তাকে রূপক কর্মধারয় সমাস বলা হয়।

উদাহরণ :

মন রূপ মাঝি = মনমাঝি

বিষাদ রূপ সিন্ধু = বিষাদসিন্ধু

সমস্তপদ

বাসবাক্য

সমাসের নাম

মনমাঝি মন রূপ মাঝি  

রুপক কর্মধারয় সমাস

বিষাদসিন্ধু বিষাদ রূপ সিন্ধু
ক্রোধানল ক্রোধ রূপ অনল
ভবনদী ভব রূপ নদী

আরো পড়ুন

ধ্বনি কাকে বলে? ধ্বনি কত প্রকার? 

পদ কাকে বলে? পদ কত প্রকার? এবং পদের প্রকারভেদ

বাক্য কাকে বলে? একটি সার্থক বাক্যের কী কী গুণ থাকা আবশ্যক?

কর্মধারয় সমাস কাকে বলে তা আশা করি বুঝতে পেরেছেন। বাংলা ২য় নিয়ে আমাদের অন্যান্য পোস্ট গুলা পড়তে পারেন এখান থেকে।

বাংলা ২য় পত্র

তাছাড়া আমাদের ওয়েবসাইটে প্রায় সকল প্রকার পিডিএফ বই রয়েছে।

আমাদের পিডিএফ বই কালেকশান গুলো পেতে 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button